শনিবার ২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ রাত ৩:২১

শেখ হাসিনার গায়ে কেউ আঁচড় দেয়ার চেষ্টা করলে দাঁতভাঙা জবাব দেয়া হবে: হানিফ

মে ২২, ২০২৩            

হৃদয়ে শরীয়তপুর ডেক্সঃ

হত্যা তো দূরে থাক, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার গায়ে যদি একটা আঁচড় দেয়ার চেষ্টা করা হয় তার দাঁত কিভাবে ভেঙে দিতে হয়, কিভাবে শায়েস্তা করতে হয়- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা সেটা জানে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি। তিনি বলেন, বিএনপি নেতারা প্রায়ই হুমকি-ধমকি দেয়। সেই সূত্র ধরে বিএনপির এক নেতা সরাসরি হত্যার হুমকি দিয়েছে। যারা হত্যার হুমকি দিচ্ছে তাদেরকে পরিস্কারভাবে জানিয়ে দিতে চাই, বাংলাদেশে যদি দ্বিতীয়বার এই উক্তি করা হয় তাহলে দেশের জনগণকে নিয়ে দাঁতভাঙা জবাব দেয়া হবে। সোমবার (২২ মে) বেলা ১১টায় রাজধানীর ইনস্টিটিউট অফ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইডিইবি) ভবনে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে ৭১ ফাউন্ডেশন আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, শেখ হাসিনাকে বারবার হত্যা করার চেষ্টা করেছে বিএনপি-জামায়াত। ১৯ বার তাঁকে হত্যার জন্য আক্রমণ করা হয়েছে। জনগণের ভালোবাসা, দোয়া ছিল- যার কারণে আল্লাহর রহমতে তিনি বেঁচে গেছেন। তিনি বলেন, যে বিএনপি নেতা হত্যার হুমকি দিয়েছে- আমরা বলেছি তাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার জন্য। আমরা আইন নিজের হাতে তুলে নিতে চাই না। যদি চাই আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ঐ ব্যক্তিকে পিটিয়ে রাস্তায় শায়েস্তা করতে পারে। কিন্তু আমরা সেটা করতে চাই না। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দিয়ে আমরা তার শাস্তি নিশ্চিত করতে চাই।

বিএনপি নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, পরিস্কারভাবে বলতে চাই বিদেশি প্রভুদের নিয়ে ষড়যন্ত্র করে শেখ হাসিনা সরকারের পতন ঘটানো যাবে না। যতই লাফালাফি করুন শেখ হাসিনার প্রতি মানুষের আস্থা আছে। যতদিন শেখ হাসিনার সঙ্গে এদেশের মানুষ আছে ততদিন তাঁর বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র সফল হবে না। ইনশাআল্লাহ্‌ আপনারা সেটা দেখতে পাবেন।

স্যাংশন আসছে এই খুশিতে বিএনপি নেতারা বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন- এমন মন্তব্য করে হানিফ বলেন, স্যাংশন আসছে, রাষ্ট্রের প্রতি? আপনাদের (বিএনপি) খুশি হওয়ার কোন কারণ নেই। আমি বিশ্বাস করি, এই রাষ্ট্রের ওপর কখনো স্যাংশন হবে না।

স্যাংশন আসলে সে দেশের কি পরিণতি হয় তা দেখার জন্য বিএনপি নেতাদের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আপনারা একটু ইরান-ইরাক, মিশর-লিবিয়ার দিকে তাকান। ইরান-ইরাক আজকে কোথায়? অর্থনৈতিক দেউলিয়ার পথে চলে গেছে। যে সমস্ত রাষ্ট্রের ওপর স্যাংশন এসেছে সেসব দেশ ছিন্নবিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আক্ষেপ করে বলেছিলেন, এই স্যাংশনের টার্গেট হয় সবসময় মুসলিম দেশগুলো। এগুলো মুসলিম বিশ্বকে দমিয়ে রাখার অপচেষ্টা ছাড়া আর কিছু নয়। বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্য করে হানিফ বলেন, জনগণের ওপর ভরসা করুন, ওই বিদেশি প্রভুর কাছে ধরনা দিয়ে স্যাংশন এনে রাষ্ট্রের কোন কল্যাণ করতে পারবেন না। তা দিয়ে ক্ষমতায়ও আসতে পারবেন না। এটা মাথায় রাখতে হবে। বাংলাদেশের মানুষ যাদেরকে চায়, তারাই ক্ষমতায় আসবে। তিনি বলেন, দেশের মানুষ শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি আস্থাশীল। আমরা বলেছি নির্বাচনে আসুন। শেখ হাসিনা বারবার বলছেন, আগামী নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু এবং সকল দলের অংগ্রহণে হবে।

বিদেশি দূতাবাসগুলোকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, আপনাদের চাওয়া আগামী নির্বাচন সকল দলের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু হোক- তাদের বলি আমরাও তো সেটাই চাই। আমাদের-আপনাদের চাওয়ায় পার্থক্য নেই। তাহলে কেন উত্তেজনা সৃষ্টি করা হচ্ছে।

যদি কোন বন্ধুরাষ্ট্র আগামী নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু হবে কিনা মনে করে সংশয়ে থাকেন- তাহলে আপনারা যতজন খুশি পর্যবেক্ষক পাঠান। তারা দেখুক নির্বাচন সুষ্ঠু হয় কিনা? আমরা নির্বাচন সুষ্ঠু করতে বদ্ধ পরিকর- বলেন তিনি।

হানিফ বলেন, নির্বাচন নিয়ে যার যত দাবি আছে, চিন্তা-ভাবনা আছে সবগুলো সংবিধানের আলোকে ভাবতে হবে। সংবিধানের মধ্যে থেকে পথ খুঁজে বের করতে হবে। সংবিধানের বাইরে যাওয়ার সুযোগ নেই।

জিয়াউর রহমানের সমালোচনা করে তিনি বলেন, আজ বিএনপি নেতারা কথায় কথায় মানবাধিকার, গণতন্ত্রের কথা বলেন। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবার হত্যার মধ্য দিয়ে রাষ্ট্র ক্ষমতায় এসে পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর মতো অত্যাচার নির্যাতন শুরু করেছিলেন। সেই সময়ের কথা তারা হয়ত ভুলে গেছেন কিন্তু জাতি ভুলে যায়নি। জিয়াউর রহমান কারফিউ দিয়ে দেশ শাসন করে গেছেন। ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার বন্ধ করেছিলেন, খুনীদের বিদেশি দূতাবাসে নিয়োগ দিয়ে পুরস্কৃত করেছিলেন। এতে প্রমাণ হয় বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের তার গভীর সম্পর্ক ছিল। এসবের মধ্য দিয়ে তিনি সেটার প্রমাণ রেখে গেছেন।

জিয়া কখনো মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করেননি উল্লেখ করে হানিফ বলেন, জিয়া মুক্তিযোদ্ধার ছদ্মাবরণে পাকিস্তানের এজেন্ট ছিলেন। কারণ মাত্র কয়েক বছরে একজন মুক্তিযোদ্ধার আমূল পরিবর্তন ঘটতে পারে না। রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসার পর তার প্রত্যেকটা কর্মকাণ্ড ছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী।

 

হানিফ বলেন, ক্ষমতায় এসে জিয়া জয় বাংলা, ৭ মার্চের ভাষণ নিষিদ্ধ করেছিলেন। দালাল আইন বাতিল করে সাড়ে এগার হাজার রাজকারকে মুক্ত করে দিয়েছিলেন। কুখ্যাত রাজাকার গোলাম আযমকে দেশে ফিরিয়ে এনে নাগরিকত্ব দিয়েছেন। নিষিদ্ধ ঘোষিত যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জামায়াতে ইসলামীকে রাজনীতি করার সুযোগ দিয়েছেন। রাজাকার শাহ আজিজুর রহমানকে প্রধানমন্ত্রী করে মন্ত্রীসভা গঠন করেছিলেন। এর মধ্য দিয়ে তিনি শুধু মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করেননি, ৩০ লাখ শহিদের আত্মত্যাগকে পদদলিত করেছেন। আওয়ামী লীগের ওপর স্টিম রোলার চালিয়েছেন। আওয়ামী লীগকে ভেঙে টুকরো টুকরো করেছিলেন। লাখ লাখ নেতা-কর্মীকে বিনা বিচারে জেলে বন্দি করেছিলেন। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের হত্যা, গুম করা হয়েছে। তাদের অপরাধ ছিল একটাই তারা মুক্তিযুদ্ধের দল করে, বঙ্গবন্ধুর দল করে।

 

তিনি বলেন, মানুষ যখন দুর্বিষহ জীবন পার করছিল, ঠিক সেই সময়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা মৃত্যু ভয় উপেক্ষা করে দেশে ফিরে এসেছিলেন। বঙ্গবন্ধুকন্যা সেদিন দেশে ফিরে কথা দিয়েছিলেন আইনের শাসন ফিরিয়ে আনবেন, বাঙালির মুক্তির জন্য কাজ করবেন। দীর্ঘ লড়াই-আন্দোলন শেষে ১৯৯৬ সালে জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার শুরু করেছিলেন। বহু প্রতিবন্ধকতার পথ মাড়িয়ে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের মধ্য দিয়ে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছেন।

 

হানিফ বলেন, ২০০১ সালের নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুকন্যা পশ্চিমা শক্তির নেপথ্য চক্রান্তে পরাজিত হয়েছিলেন। ক্ষমতায় এসে বিএনপি-জামায়াত দেশকে মহাশশ্মানে পরিণত করেছিল। আওয়ামী লীগের ২৬ হাজার নেতা-কর্মীকে প্রাণ দিতে হয়েছিল। দেশকে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদের চারণভূমি বানিয়েছিল। আওয়ামী লীগের নাম নিশানা মুছে দেয়ার চেষ্টা করেছিল।

 

তিনি বলেন, ২০০৪ সালে রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। মানুষের দোয়ায় আল্লাহর রহমতে তিনি বেঁচে গিয়েছিলেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের ২৪ জন নেতা-কর্মীকে আমরা হারিয়েছিলাম, ৫শ’র বেশি নেতা-কর্মী আহত হয়েছিলেন। সেদিনের বর্বরোচিত হামলার ঘটনায় মামলাও হয়নি। মামলা করতে দেয়া হয়নি।

 

আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, আজকে কোন মুখে তারা গণতন্ত্রের কথা বলে, সবক দেয়? আজকে পশ্চিমা বিশ্ব আপনারা যারা আমাদের দেশের গণতন্ত্রের কথা বলে আইনের শাসনের দোহাই দেন! তখন কোথায় ছিল আইনের শাসন, কোথায় ছিল মানবতা? তখন কেন আপনারা কথা বলেননি। তাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেননি। যারা সেই সময় আইনের শাসন ধ্বংস করেছিল, হত্যা-সন্ত্রাস করেছিল, তাদেরকে নিয়ে আপনারা আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে চান? এদেশের মানুষ বোঝে। শেখ হাসিনার পক্ষে এদেশের মানুষ আছে। যার কারণে নির্বাচনে বিজয়ের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় এসেছে।

 

তিনি বলেন, ২০০৯ সালে মাথাপিছু আয় ছিল ৫০০ ডলারের কাছাকাছি। ৪২ ভাগ ছিল দরিদ্র, ২৪ ভাগ ছিল চরম দরিদ্র। আজকে একটা ইনডেক্সেই প্রমাণ হয় বাংলাদেশ কোথায় পৌঁছেছে। আজ দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ২৯০০ ডলারে পৌঁছে গেছে। বিশ্বে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে উন্নয়ন হয়েছে এটা অবিস্মরণীয়। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উন্নয়ন দেখে বিশ্বের অর্থনীতিবিদরা অবাক হয়ে যান। তিনি কিভাবে দরিদ্র দেশের এই সীমিত সম্পদ নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন? যার কারণে আজকে তাঁকে উন্নয়নের রোল মডেল বলা হয়।

 

তিনি বলেন, বাঙালি জাতির মুকুট মনি শেখ হাসিনা। তিনি ফিরে এসেছিলেন বলে বাঙালি জাতি নতুন করে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে। পৃথিবীর কাছে নতুনভাবে পরিচিতি পেয়েছে যে, বাংলাদেশও পারে।

 

হানিফ বলেন, শেখ হাসিনার এই পথচলা মসৃণ ছিল না। শেখ হাসিনাকে ক্ষমতাচ্যুত করতে অতীতে বারবার ষড়যন্ত্র হয়েছে। দেশের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করতে আবারও নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। গত বছর র‌্যাব-পুলিশের ছয়জন সদস্যদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। আমি এটা স্যাংশন বলতে চাই না। রাষ্ট্রের স্যাংশন হতে পারে, ব্যক্তির নয়। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা কেন? কী কারণে? মানবাধিকার লঙ্ঘন কোথায় হয়েছে? সন্ত্রাসী, মাদক চোরাকারবারীদের ধরতে গিয়ে তাদের পক্ষ থেকে গোলাগুলিতে দু’একজন হয়ত মারা গেছে। এতে নাকি মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে।

২০০৫ এবং ২০০৬ সালে অপারেশন ক্লিনহার্ট নামে একটা অপারেশন হয়েছিলো। এর লক্ষ্য ছিল আওয়ামী লীগ, যুবলীগ নেতা-কর্মীদের ধরে নিয়ে হত্যা করা। ৬৫ জন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ নেতা-কর্মীকে তখন পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তখন কেন স্যাংশন দেয়া হয়নি? – প্রশ্ন রাখেন তিনি।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ৭১ ফাউন্ডেশনের প্রধান উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা মাজেদা শওকত আলী। এতে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ৭১ ফাউন্ডেশন চেয়ারম্যান ডা. খালেদ শওকত আলী।

 

আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ৭১ ফাউন্ডেশন সাধারণ সম্পাদক ড. জেবুন্নাহার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ, লেখক ও গবেষক মারুফ রসুল, শহীদ বুদ্ধিজীবী সন্তান ও অভিনেত্রী শমী কায়সার প্রমুখ।

© Alright Reserved 2021, Hridoye Shariatpur