শনিবার ২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ রাত ৪:৪১

জাজিরা সাত্তার মাদবর ঘাটে ফেরি পারাপারে দিতে হয় চাঁদা

এপ্রিল ২০, ২০২২            

হৃদয়ে শরীয়তপুর ডেক্স :

শরীয়তপুরের জাজিরায় সাত্তার মাদবর ঘাটদিয় ফেরি পারাপারে ট্রাক চালকদের দিতে হয় অতিরিক্ত চাঁদা। চাঁদা দিতে না চাইলে নির্যাতনের শিকার হতে হয় চালকদের।

জানা যায়, দিনে তিনটি এ – টাইপের ফেরি , দুটি ডাম্প ফেরি ও একটি ছোট ফেরি চলাচল করছে । আর রাতে শুধু তিনটি এ টাইপের ফেরি চলাচল করছে । তখন ডাম্প ফেরি দুটি ও ছোট ফেরি বন্ধ রাখা হয় । দিন – রাতে মিলে নৌপথটিতে ৭০০ থেকে সাড়ে ৭০০ যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে । এর মধ্যে রাতে এ ঘাট দিয়ে ২০০-২৫০টি পণ্যবাহী ট্রাক পার করা হচ্ছে । সামনে ঈদ হওয়ার কারণে ঘাটটিতে পণ্যবাহী ও ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে । আগেভাগে ফেরি পারাপার হতে শরীয়তপুরের জাজিরা – শিমুলিয়া নৌপথের সাত্তার মাদবর ঘাটে পণ্যবাহী ট্রাকের চালকদের অতিরিক্ত টাকা গুনতে হচ্ছে । ওই পথে রাতে চলাচলকারী পণ্যবাহী গাড়ি থেকে স্থানীয় একটি চক্র টাকা তুলছে । ট্রাফিক পুলিশের সামনে টাকা তোলা হলেও পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয় না বলেও অভিযোগ রয়েছে । জরুরি কাঁচামালবাহী গাড়ির চালকদের অভিযোগ , রাতে ঘাটে আসা গাড়িগুলোকে দ্রুত ফেরির সিরিয়াল পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে স্থানীয় শহীদ চেংগা নামের এক ব্যক্তি ৮০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা নেন । টাকা নেওয়ার পর তিনি যে গাড়িগুলোকে সামনের দিকে পাঠান ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা সেই গাড়িগুলোকে ফেরিতে ওঠার সুযোগ করে দেন । এ বিষয়ে কোনো চালক প্রতিবাদ করলেই তাঁকে মারধর করা হয় । গত শনিবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে জাজিরা সাত্তার মাতবর ঘাটে আসা পণ্যবাহী ট্রাক থেকে টাকা তুলছিলেন শহীদ চেংগা । এ সময় গাড়ির লাইন থেকে সিরিয়াল ভেঙে ফেরিঘাটের দিকে গাড়ি পাঠানোর প্রতিবাদ করেন চালক নান্নু মিয়া । প্রতিবাদ করায় ওই চালককে মারধর করেন শহীদ ও তাঁর লোকজন ।

 

অভিযোগ অস্বীকার করে শহীদ চেংগা বলেন ,  আমি কোন গাড়ি থেকে টাকা তুলছি না । আমাদের সড়কটি সরু । অনেক সময় দুটি গাড়ি পাশাপাশি চলতে গিয়ে যানজট লেগে যায় । তখন অনেককে সহায়তা করি । বিনিময়ে কারও কাছ থেকে টাকা নেই না ।

 

টাকা ওঠানোর বিষয়ে জানতে চাইলে ঘাটে দায়িত্বে থাকা ট্রাফিক বিভাগের পরিদর্শক আরিফুর রহমান বলেন , এমন অভিযোগ আমার কাছেও এসেছে । বিষয়টি নিয়ে আমরা কাজ করছি । থানা পুলিশকে জানানো হয়েছে ।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা ( বিআইডব্লিউটিসি ) ও স্থানীয় সূত্র জানায় , মাদারীপুরের বাংলাবাজার ও মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া নৌপথ দিয়ে শরীয়তপুর , মাদারীপুরসহ দক্ষিণ – পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলার যাত্রীবাহী এবং পণ্যবাহী যানবাহন ফেরিতে পারাপার করে ।

শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার এস এম আশ্রাফুজ্জামান বলেন , ঘাটে কেউ চাঁদাবাজি করে , এমন তথ্য আমার কাছে নেই । ঘাটগুলোতে স্থানীয় সিন্ডিকেট গড়ে ওঠে , তারা অনেক অপরাধ সংঘটিত করে । এমন কোনো চক্র চালক ও ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা নিয়ে থাকলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে । আর ওই ঘটনার সঙ্গে ট্রাফিক পুলিশের কোনো সদস্যের সম্পৃক্ততার প্রমাণ মিললে তাঁর বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে ।

 

© Alright Reserved 2021, Hridoye Shariatpur