সোমবার ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ রাত ১০:১৪

জাজিরায় ঝড়ে গাছচাপায় নারীর মৃত্যু

অক্টোবর ২৫, ২০২২            

হৃদয়ে শরীয়তপুর ডেস্কঃ

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের সময় শরীয়তপুরের জাজিরায় গাছের নিচে চাপা পড়ে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। সাফিয়া বেগম (৬৫) নামের ওই নারী জাজিরা উপজেলার সিডারচর এলাকার হালান মুসল্লির স্ত্রী। গতকাল সোমবার রাত ১০টার দিকে তিনি মারা যান।

ওই ঝড়ে জেলার বিভিন্ন স্থানে ৯৩০টি বসতঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুৎ ও মোবাইল নেটওয়ার্ক বন্ধ থাকায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন।

জেলা প্রশাসনের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ কার্যালয় সূত্র জানায়, গতকাল সন্ধ্যার পর ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের প্রভাব শুরু হয় শরীয়তপুরের বিভিন্ন স্থানে। রাত ১১টা পর্যন্ত ঝোড়ো বাতাসে বিভিন্ন গ্রামের কাঁচা, আধা পাকা ঘর বিধ্বস্ত হতে থাকে। গাছ পড়ে বিদ্যুৎ ও ইন্টারনেট লাইন বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। জেলার বিভিন্ন গ্রামে ৯৩০টি বসতঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৪০০টি সম্পূর্ণ ও ৫৩০টি আংশিক বিধ্বস্ত হয়েছে। এ ঝড়ে নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৭২ হাজার ৫০০ মানুষ।

পদ্মা নদীর দুর্গম চর কুন্ডেরচর ইউনিয়নের সিডারচর। ওই চরের বাসিন্দা হালান মুসল্লির বসতঘরের ওপর গতকাল রাত ১০টার দিকে একটি গাছ উপড়ে পড়ে। তখন ঘরে থাকা তাঁর স্ত্রী সাফিয়া বেগম গাছের নিচে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান।

সাফিয়ার ছেলে আলী জব্বার বলেন, ‘গ্রামের স্কুলে আশ্রয় নেওয়ার জন্য বলা হয়েছিল। কিন্তু ঝড়ের সময় আমরা কোথাও না গিয়ে ঘরেই ছিলাম। এভাবে গাছ পড়ে আমার মা মারা যাবে, তা ভাবতে পারিনি।’

শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ পারভেজ হাসান বলেন, ‘ঘূর্ণিঝড়ে যাতে কম ক্ষয়ক্ষতি হয়, সে দিকে আমাদের চেষ্টা ছিল। ২৯৯টি আশ্রয়কেন্দ্রে মানুষ আশ্রয় নিয়েছিলেন। তাঁরা সকালে নিজেদের বাড়িতে ফিরে গেছেন। তাঁদের জন্য আশ্রয়কেন্দ্রে খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। ঝড়ে যাঁদের ক্ষতি হয়েছে, তাঁদের সহায়তা করা হবে। খাদ্যসহায়তা ও টাকা বিতরণের কাজ করছে উপজেলা প্রশাসন।

 

 

© Alright Reserved 2021, Hridoye Shariatpur