মঙ্গলবার ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ বিকাল ৩:১৮

চিতলিয়ায় আ’লীগ সভাপতি হত্যা, ৬৫ জনকে আসামী করে মামলা

মে ৬, ২০২২            

হৃদয়ে শরীয়তপুর ডেক্স:

শরীয়তপুরের চিতলিয়ায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি কুদ্দুস বেপারী নিহত হওয়ার ঘটনায় মামলা হয়েছে। বুধবার মধ্যরাতে পালং মডেল থানায় মামলাটি করেন নিহতের ছেলে লিটন বেপারী। মামলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হারুন হাওলাদারের ছেলে সোহান হাওলাদারকে প্রধান আসামি করে ৬৫ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাত ১০টা পর্যন্ত পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার আশঙ্কায় পুরুষশূন্য হয়ে পড়েছে চিতলিয়ার মজুমদারকান্দি গ্রাম।

 

মামালর বাদী লিটন বেপারী বলেন, আগে থেকেই গ্রামের মানুষ দুটি দলে বিভক্ত। আমাদের পরিবার ছালাম হাওলাদারের সমর্থক। এর আগেও হারুন হাওলাদরের ছেলে সোহান হাওলাদার দলবল নিয়ে একাধিকবার আমাদের মারধর করেছে। ঈদের দিন নামাজ পড়ে বাড়ি ফেরার সময় সোহানের হুকুমে সন্ত্রাসীরা আমার বাবাকে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে। আশপাশে অনেকে থাকলেও ওদের অস্ত্রের সামনে যেতে সাহস পায়নি কেউ। আমরা বাকি আসামিদের গ্রেপ্তার ও অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

পালং মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আকতার হোসেন জানান, আওয়ামী লীগ নেতা হত্যার ঘটনায় বুধবার রাতে ৬৫ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন নিহতের ছেলে লিটন বেপারী। মামলায় অভিযুক্ত পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে তৎপর রয়েছে পুলিশ।

উল্লেখ, গত মঙ্গলবার ঈদের নামাজ শেষে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে চিতলিয়ায় সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হারুন হাওলাদার ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ছালাম হাওলাদারের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে চিতলিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি কুদ্দুস বেপারী নিহত হন। আহত হন কমপক্ষে ১৭ জন।

 

© Alright Reserved 2021, Hridoye Shariatpur