সোমবার ১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ রাত ১০:১৬

অধিনায়ক সাকিবের যে দুটি ইতিবাচক দিক দেখছেন সিডন্স

জুন ৪, ২০২২            

‘অধিনায়ক’ সাকিব আল হাসানের জন্ম ও বেড়ে ওঠা জেমি সিডন্সের চোখের সামনেই। ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে সেন্ট ভিনসেন্টে প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনেই চোটে পড়ে মাশরাফি বিন মুর্তজা সিরিজ থেকে ছিটকে পড়লেন। হঠাৎই অধিনায়ক হয়ে যান সহ–অধিনায়ক সাকিব। জেমি সিডন্স তখন বাংলাদেশের প্রধান কোচ।

২২ বছর বয়সী সাকিবকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজ জয়ের কীর্তি দেখেছেন। ২০১১ সাল পর্যন্ত সাকিবের প্রথম দফা অধিনায়কত্বের প্রায় পুরোটা সময়ই তো ছিলেন সিডন্স। অধিনায়ক সাকিবের ভালো–মন্দ তাঁর চেয়ে ভালো আর কে–ই বা জানেন!
সেই সাকিব মাঝখানে বছরখানেক নেতৃত্ব দেওয়ার পর আবার টেস্ট দলের অধিনায়ক হয়েছেন, জেমি সিডন্সও আছেন বাংলাদেশ ড্রেসিংরুমে, এবার ব্যাটিং কোচের ভূমিকায়। অধিনায়ক সাকিবের নতুন অধ্যায় নিয়ে কথা বলার জন্য জেমি সিডন্সের চেয়ে উপযুক্ত কাউকে খুঁজে পাওয়া কঠিন। তা কী বললেন তিনি?

সাকিব আবার অধিনায়ক হওয়ায় সিডন্স দুটি ইতিবাচক দিক খুঁজে পাচ্ছেন। আজ মিরপুরে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের ব্যাটসম্যানদের সঙ্গে ব্যক্তিগত অনুশীলন শেষে সাংবাদিকদের বললেন, ‘এখানে দুটি ইতিবাচক দিক আছে। সাকিব খুব ভালো অধিনায়ক। খেলা নিয়ে ভাবনার জায়গাটাতেও সাকিব খুবই ভালো। একই সঙ্গে সাকিব ধারাবাহিক পারফরমারও। যে কারণে সবাই তাঁকে অনুসরণ করেন। সে অধিনায়ক হিসেবে দারুণ কিছুই করবে।

সে সময় বাংলাদেশ দলের কোচ সিডন্স ও অধিনায়ক সাকিব যখন একই ফ্রেমে

সে সময় বাংলাদেশ দলের কোচ সিডন্স ও অধিনায়ক সাকিব যখন একই ফ্রেমেফাইল। ছবি: বিসিবি

সাকিবকে আবার নেতৃত্বে ফেরানোর মূল কারণ ‘অধিনায়কত্বের চাপে’ মুমিনুল হকের ব্যাটিং ভুলে যাওয়া। সেই সমস্যারও সমাধান হবে বলেই আশাবাদী সিডন্স, ‘আরেকটা ভালো দিক হচ্ছে, মুমিনুল এখন তাঁর ব্যাটিংয়ে মনোযোগী হতে পারবে। সে কিছুদিন ধরে রান পাচ্ছিল না। এখন সে ব্যাটিংয়ে ১০০ ভাগ মনোযোগ দিতে পারবে। ওর পারফরম্যান্সটা আমাদের দরকার। আমরা সবাই জানি, সে ভালো ক্রিকেটার। সেই ক্রিকেটার ফিরে আসুক, এটাই চাই। অধিনায়কত্বের চাপ যেহেতু থাকছে না, আশা করি সে এখন সাচ্ছন্দে খেলতে পারবে।’
অধিনায়ক মুমিনুলের ব্যক্তিগত ফর্মের মতোই হতাশাজনক বাংলাদেশের দলীয় পারফরম্যান্স। গত মার্চ-এপ্রিলের দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে দুই টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ৫৩ ও ৮০ রানে অলআউট হয়ে যাওয়া এখনো দগদগে ক্ষত হয়ে আছে। সেই ক্ষতে লবণ ছিটানোর কাজটা করেছে দেশের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেও সিরিজ পরাজয়। চট্টগ্রামে আধিপত্য দেখিয়ে ড্রয়ের পর মিরপুরে ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হার। তিন ইনিংসে মুমিনুলের রান ২, ৯ ও ০। এই দুই মিলেই মুমিনুলের অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেওয়া।

সাকিব অধিনায়ক হয়ে ফেরার পর থেকেই একটি প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। গত কয়েক বছর তিনি টেস্ট ক্রিকেট থেকে নানা কারণে বিশ্রাম নিয়ে খেলছেন। অধিনায়ক হলে তো সে সুযোগ থাকছে না। সাকিবকে কি এখন নিয়মিত টেস্ট খেলতে দেখা যাবে?
সিডন্সকেও আজ এই প্রশ্নের উত্তর দিতে হলো। উত্তরে তিনি আশার কথাই শোনালেন, ‘সে যদি অধিনায়কত্ব করতে চায়, তাহলে তাঁকে খেলতেই হবে। না খেলে তো অধিনায়কত্ব করা যায় না। আমার মনে হয়, সে আবারও অধিনায়ক হওয়ার বিষয়টিতে রোমাঞ্চিত। আমি তো মনে করি, সাকিবের নেতৃত্বগুণের এমন কিছু দিক এখন আমরা দেখতে পাব, যা আমরা আগে দেখিনি।’

জেমি সিডন্সের আশা পূরণ হলেই ভালো।

© Alright Reserved 2021, Hridoye Shariatpur